আয়াতুল কুরসী

আয়াতুল কুরসী পবিত্র কুরআন মাজীদের সূরা বাকারাহ’র ২৫৫তম আয়াত ।

“আল্লাহ, ঐ পবিত্র সত্তা যিনি ব্যতীত কোন ইলাহ নাই
তিনি চিরঞ্জীব ও প্রতিষ্ঠিত
তাকে তন্দ্রা ও নিদ্রা স্পর্শ করতে পারে না
তাঁরই জন্য একচ্ছত্র মালিকানা স্বত্ব ঐ সমস্ত বস্তুর যা কিছু আসমান ও যমীনের মাঝে রয়েছে
এমন কে আছে যে, তাঁর নিকট বিনা অনুমতিতে সুপারিশ করতে পারে? তিনি অগ্র-পশ্চাতের সব কিছু জানেন
এবং তারা(মানুষ) তাঁর জ্ঞানের কিছুই নিজেদের জ্ঞানের মধ্যে আনতে সক্ষম নয়, তবে তিনি যাকে ইচ্ছা করেন
এবং তাঁর কুরসী সমগ্র আসমান ও যমীনব্যাপী পরিবেষ্টিত
এবং এদের রক্ষণাবেক্ষণ করতে তাঁর কোন বেগ পেতে হয় না
তিনি অতি মহান ও মহামহিম”

উবাই বিন কা’ব (রা) হতে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, “আবু মুনদির ! তুমি কি জানো আল্লাহর কিতাবের কোন আয়াতটি সর্বশ্রেষ্ঠ? আমি বললাম, ‘আল্লাহ ও তাঁর রাসুলই ভালো জানেন’। তিনি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আবার বললেন, ‘তুমি কি জানো আল্লাহর কিতাবের কোন আয়াতটি, তোমার ধারণায়, সর্বশ্রেষ্ঠ’? আমি(আবু মুনদির) উত্তরে বললাম, ‘এটা হল ‘আল্লাহু লা~ ইলাহা ইল্লা হুয়াল হাইয়্যুল কাইয়্যুম’ [২-২৫৫] । তখন তিনি আমার বুকে মৃদু চাপড় দিয়ে বললেন, ‘ও আবু মুনদির, তোমার জ্ঞানের জন্য আনন্দিত হও ! ( তোমার এই জ্ঞান তোমার জন্য শ্রদ্ধা,সম্মান ও উপকারী এক উৎস হয়ে যাক) [মুসলিম]

আসমা বিনত ইয়াজিদ( রাদিয়াল্লাহু আনহুমা) হতে বর্ণিত,‘আমি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বলতে শুনেছি দুইটি আয়াত সম্পর্কে, একটি ; “আল্লাহ ! তিনি ব্যতীত আর কোন ইলাহ নেই – তিনি চিরঞ্জীব, চিরস্থায়ী [২-২৫৫]। এবং অপরটি; “আলিফ লাম মিম, আল্লাহ ! তিনি ব্যতীত আর কোন ইলাহ নেই- তিনি চিরঞ্জীব, চিরস্থায়ী” [৩-১,২], উভয়টি মহান আল্লাহ তায়ালার সর্বোত্তম নামকে ধারণ করে আছে”। [ইমাম আহমদ বিন হাম্বল, মুসনাদ]

আবু উমামাহ আল বাহিলি(রাদিয়াল্লাহু আনহু) হতে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন; “ প্রত্যেক ফরয সালাতের পর যে ব্যক্তি উক্ত আয়াত তিলাওয়াত করবে, তার জান্নাতে প্রবেশের পথে একমাত্র মৃত্যুই বাধা হয়ে থাকে”।[ইবন হিব্বান, ইবন সুন্নি]

আবু দার রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, ‘ও রাসুলুল্লাহ, আপনার নিকট নাযিলকৃত সর্বোত্তম বস্তু কি?’ তিনি উত্তর করলেন, ‘আয়াতুল কুরসি, আল্লাহু লা ইলাহা ইল্লা হুয়া’ [আন-নাসাঈ]

বিছানায় ঘুমাতে যাবার সময়, আয়াতুল কুরসি তিলাওয়াত করো, আল্লাহ! লা ইলাহ ইল্লা হুয়া( তিনি ছাড়া কোন ইলাহ নেই), তিনি চিরঞ্জীব, চিরস্থায়ী[২-২৫৫] আয়াতটি তিলাওয়াত শেষ করার সময় থেকে ভোর হওয়া পর্যন্ত আল্লাহর পক্ষ হতে একজন ফেরেশতা প্রেরণ করা হয় এবং কোন শয়তান নিকটে আসতে পারে না। [বুখারী]

আবু হুরায়রা (রাদিয়াল্লাহু আনহু) হতে বর্ণিত; সূরা বাকারাহতে এমন একটি আয়াত আছে যা কুরআনের সর্বশ্রেষ্ঠ আয়াত। এমন কোন গৃহ নেই যেখানে এটি তিলাওয়াত করা হয় আর শয়তান ঐ গৃহ থেকে পালায় না; আয়াতুল কুরসী। সবকিছুর একটি শীর্ষবিন্দু থাকে এবং মহাগ্রন্থ আল-কুরআনের শীর্ষবিন্দু হল সূরা বাকারাহ। এতে এমন একটি আয়াত আছে যা কুরআনের সর্বশ্রেষ্ঠ আয়াত; আয়াত আল-কুরসী [তিরমিযি]

Advertisements
This entry was posted in আল-কুর'আন. Bookmark the permalink.

One Response to আয়াতুল কুরসী

  1. মো: রাশিদুল হাসান খাঁন বলেছেন:

    আসসালামু আলাইকুম। আয়াতুল কুরসীর ফজিলত সম্পর্কে লিখার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। আল্লাহ হাফেজ।

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s