যে ব্যক্তি যমানাকে গালি দেয় সে আল্লাহকে কষ্ট দেয়*

আল্লাহ তায়ালা এরশাদ করেন, “অবিশ্বাসীরা বলে, শুধু দুনিয়ার জীবনই আমাদের জীবন। আমরা এখানেই মরি ও বাঁচি, যমানা ব্যতীত অন্য কিছুই আমাদেরকে ধ্বংস করতে পারে না”। *১ [সূরা জাসিয়া-২৪]

সহীহ হাদীসে আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, আল্লাহ তায়ালা এরশাদ করেন, ‘আদম সন্তান আমাকে পীড়া দেয়। কারণ, সে যুগ বা সময়কে গালি দেয়।*২ অথচ আমিই হচ্ছি [যুগ] সময়। আমিই [সময়ের] রাতদিনকে পরিবর্তন করি’। [সহীহ বুখারি, হাদিস নং ৪৭২৬; সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২২৪৬]

অন্য বর্ণনায় আছে, ‘তোমরা যুগকে গালি দিওনা। কারণ, আল্লাহই হচ্ছেন যামানা’। [সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২২৪৬]

এ অধ্যায় থেকে নিম্নোক্ত বিষয়গুলো জানা যায়;
• যুগ বা সময়কে গালি দেয়া নিষেধ।
• যুগকে গালি দেয়া আল্লাহকে কষ্ট দেয়ারই নামান্তর।
• ‘আল্লাহই হচ্ছেন যুগ’। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের এ বাণীর মধ্যে গভীর চিন্তার বিষয় নিহিত রয়েছে ।
• বান্দার অন্তরে আল্লাহকে গালি দেয়ার ইচ্ছা না থাকলেও অসাবধানতাবশত মনের অগোচরে তাঁকে গালি দিয়ে ফেলতে পারে ।

__________________________________________________________________________

যামানাকে ভালো-মন্দ বলা বা গালি দেয়া নাজায়েয। এ ধরণের অভ্যাস বর্জন করা খুবই জরুরী। যামানাকে গালি দেয়া পূর্ণ তাওহীদের পরিপন্থী। সাধারণত মূর্খ লোকদের দেখা যায় যে, তারা যামানাকে গালি দেয়, যখনই কোন সময় তাদের মনমতো কোন কাজ হয় না তখনই তার সে সময় বা যুগকে কটুক্তি এবং সেই দিন অথবা মাস অথবা বছরকে অভিশাপ প্রদান করে। এ কথা সর্বজন বিদিত যে, যামানার কিছু করার ক্ষমতা নেই বরং যা কিছুর পরিবর্তন ঘটে তা স্বয়ং আল্লাহ করেন। ফলে গালি আল্লাহকে কষ্ট দেয়। যামানাকে গালি দেয়ার কয়েকটি স্তর আছে। তার মধ্যে সর্বোচ্চ হল যামানাকে অভিশাপ করা; কিন্তু কোন কোন বছরকে কঠিন বছর বলা অথবা কোন কোন দিনকে কালোদিবস হিসেবে আখ্যায়িত করা অথবা কোন কোন মাসকে অশুভ বলে আখ্যায়িত করা যামানাকে গালি দেয়ার অন্তর্ভুক্ত হবে না। কেননা এটা নিদির্ষ্ট একটা ব্যাপার। যে দিনে তার ভাগ্য তার সহায় হয়নি অর্থাৎ যেন সে তার অবস্থার বর্ণনা করছে যামানার ভালো মন্দের নয়।

*১ তাওহীদবাদীরা প্রতিটি বস্তুর সম্বোধন আল্লাহর দিকে করেন আর মুশরিকরা প্রতিটি বস্তুর সম্বোধন যামানার দিকে করে।
*২ এর অর্থ এ নয় যে, যামানা আল্লাহর নামসমূহের একটি। বরং এখানে বলার অর্থ হল, যামানা স্বয়ং না কোন জিনিসের মালিক
না কিছু করে বা করতে পারবে বরং যামানার প্রকৃত ধারাবাহিকভাবে পরিবর্তন করেন এবং এ দুটির কোন কর্মক্ষমতা নাই ফলে এ দুটিকে গালি দেয়া তাদের এ পরিবর্তনকারীকে গালি দেয়ারই নামান্তর।

মূলঃ কিতাবুত তাওহীদ ; অধ্যায় ৪৪; মুহাম্মদ বিন সুলায়মান আত-তামীমী (রাহিমুল্লাহ)

Advertisements
This entry was posted in তাওহীদ. Bookmark the permalink.

2 Responses to যে ব্যক্তি যমানাকে গালি দেয় সে আল্লাহকে কষ্ট দেয়*

  1. Saad বলেছেন:

    Plz clarify?
    I can not hold the theme….

  2. মো: রাশিদুল হাসান খাঁন বলেছেন:

    আসসালামু আলাইকুম। যে ব্যাক্তি অন্য ব্যাক্তিকে গালি দেয় সে যেন আল্লাহকে কষ্ট দিল। এধরনের হারাম কাজ থেকে আমার দূরে থাকা উচিত। ফী- আমানিল্লাহ।

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s