মুসলিমরা সৃষ্টিকর্তাকে কেন “আল্লাহ” বলে ডাকে?

 

প্রশ্নঃ প্রশ্নটা আমার এক অমুসলিম বান্ধবীর।সে তার পরিচয় দিতে অনিচ্ছুক।তার প্রশ্ন হল আল্লাহকে কেন আল্লাহ বলে ডাকা হয়? অন্য কোন নামে ডাকা হয় না কেন?

উত্তরঃ

ডা. জাকির নাইকঃ বোন, আপনি প্রশ্ন করলেন যে, আল্লাহকে কেন আল্লাহ নামে ডাকা হয়,অন্য নামে কেন ডাকা হয় না? এর উত্তর আছে পবিত্র কুর’আনে সূরা ইসরায় ১১০ নম্বর আয়াতে উল্লেখ করা হয়েছে-

“তোমরা তাঁকে ডাক আল্লাহ অথবা রহমান বলে।তোমরা তাঁকে যে নামেই ডাক না কেন সকল সুন্দর নামগুলো তো তাঁরই।”

আপনি মহান স্রষ্টা আল্লাহ সুবহানা ওয়া তা’আলা কে ডাকতে পারেন যে কোন নামে সেটা হতে হবে সঠিক নাম,সেটা হবে বিশুদ্ধ নাম,এমন নাম হবে যেটা তিনি নিজেই দিয়েছেন।পবিত্র কুর’আন এবং সহীহ হাদিসে আল্লাহর নাম উল্লেখ আছে ৯৯ টি।আর সবার উপরে যে নাম সেটি হল “আল্লাহ”। আর এই কথাটা যে সুন্দর নামগুলো আল্লাহর,এটা সূরা ইসরার ১১০ নম্বর আয়াতে উল্লেখ আছে, এছাড়াও সূরা “ত্বহার” ৮ নম্বর আয়াতে উল্লেখ করা হয়েছে,সূরা আ’রাফ এর ১৮০ নম্বর আয়াতে উল্লেখ আছে, সূরা হাশরের ২৪ নম্বর আয়াতে আছে,এখানে আল্লাহ তা’আলা বলেছেন-

“সুন্দর নামগুলো কেবল আল্লাহর জন্যই।”

আর সবচেয়ে শ্রেষ্ঠ নাম আল্লাহ।এখন আমরা মুসলিমরা কেন আল্লাহ তা’আলাকে আরবীতে আল্লাহ বলে ডাকি?কেন ইংরেজি God বলে ডাকিনা?আসলে এর কারন্টা হচ্ছে অন্যসব নাম আর শব্দগুলোকে আমরা বিকৃত করতে পারি।যেমন-ধরুন ইংরেজিতে God এর পর একটা s লাগালে হবে Gods। ইশ্বরের বহুবচন।আল্লাহর কোন বহুবচন হয়না।“ক্বুলহু আল্লাহু আহ্বাদ” -বল তিনি আল্লাহ এক ও অদ্বিতীয়। যদি  God এর পর ess যোগ করেন তাহলে এটা হবে Goddess।মহিলা ইশ্বর।ইসলামে পুরুষ আল্লাহ বা মহিলা আল্লাহ বলে কিছু নেই।আল্লাহ তা’আলার কোন লিঙ্গ নেই।যদি God এর পর father যোগ করেন তাহলে Godfather, সে আমার অভিভাবক। ইসলাম ধর্মে আল্লাহ আব্বা বা আল্লাহ Father বলে কিছু নেই।যদি God এর পর একটা mother যোগ করেন তবে হবে, Godmother।ইসলাম ধর্মে আল্লাহ mother বা আল্লাহ আম্মি বলে কিছু নেই।যদি God এর পূর্বে tin কথাটা লাগান তবে হবে Tin God(Fake God)।ইসলামে Tin Allah বলে কিছু নেই। এজন্যই আমরা মুসলিমরা আল্লাহকে ডাকি আরবী শব্দ আল্লাহ বলেই। আর এ কারনেই আল্লাহ শব্দটা বেশিরভাগ ধর্ম গ্রন্থগুলোতে দেখতে পাবেন।যদি শিখ ধর্ম গ্রন্থ পড়েন তবে সেখানে মহান সৃষ্টিকর্তার একটা বৈশিষ্ট্যের কথা বলা হয়েছে “আল্লাহ”

যদি খ্রিস্টানদের বাইবেল পড়েন  Gospel ob Mark এর ১৫ নং অধ্যায়ের ৩৪ নং অনুচ্ছেদে আছে যে-

“যীশুখ্রিস্টকে যখন ক্রুশবিদ্ধ করা হয়েছিল তখন তিনি বলছিলেন-‘এল্লাই এল্লাই লামা সাবাকতানি’-ইশ্বর,ইশ্বর তুমি কেন আমাকে ত্যাগ করলে।”

এই এল্লাই এল্লাই লামা সবাকতানি শুনে কি মনে হয় ইশ্বর তুমি কেন আমাকে ত্যাগ করলে? না। তবে যদি আরবী করেন তবে এটা হবে “এল্লাই এল্লাই লামা তারাকতানি।” একই রকম।এই হিব্রু আর আরবী ভাষা দুটো একই রকম।(কাছাকাছি ভাষা) আর আপনারা ধর্মীয় ডিকশনারীতে দেখবেন সেখানে বলা হয়েছে, আল্লাহ বা এল্লাই।একই কথা।তাহলে আল্লাহ শব্দটি বাইবেলেও আছে,হিন্দু ধর্মগ্রন্থেও আছে,বেদেও উল্লেখ করা আছে।একটা আলাহা উপনিষদ আছে। যার নাম “আল্লাহ উপনিষদ”। তাহলে আল্লাহ শব্দটা বিভিন্ন প্রধান ধর্মগ্রন্থে উল্লেখ আছে।এটাই হল স্রষ্টার সবচেয়ে সঠিক ও শুদ্ধ নাম।

______________________________

Advertisements
This entry was posted in প্রশ্ন উত্তর and tagged . Bookmark the permalink.

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s